Thursday , December 5 2019
হোম / বাংলাদেশ / অপেক্ষা করতে হবে বিএনপির মনোনয়নপ্রত্যাশীদের

অপেক্ষা করতে হবে বিএনপির মনোনয়নপ্রত্যাশীদের

নির্বাচনে যোগ্য প্রার্থী বাছাইয়ের প্রক্রিয়া আজ বুধবার শেষ করতে যাচ্ছে বিএনপি। এরপরই দলটি প্রার্থী চূড়ান্ত করার কাজ শুরু করবে। প্রার্থী বাছাইয়ের সাক্ষাৎকার পর্বে মনোনয়নপ্রত্যাশীদের বেশ কিছু নির্দেশনা দিয়েছে দলটি। মূলত নেতাদের নির্বাচনকেন্দ্রিক কর্মকাণ্ড কী হবে, সে বিষয়ে বার্তা দিতে এবার সাক্ষাৎকার পর্বকে বিশেষ গুরুত্ব দিয়েছে দলটি। এ পর্বে কোনো মনোনয়নপ্রত্যাশীকে সরাসরি ‘সবুজসংকেত’ দেওয়া হয়নি। তাই আনুষ্ঠানিকভাবে প্রার্থীর নাম ঘোষণার জন্য অপেক্ষা করতে হচ্ছে বিএনপির মনোনয়নপ্রত্যাশীদের।

বিএনপির একটি সূত্র জানিয়েছে, নির্বাচনে দলের প্রার্থী মনোনয়নের বিষয়টি অনেক আগে থেকে ঠিক করে রাখা। আন্দোলনের অংশ হিসেবে বিএনপি নির্বাচনে যাবে, এটাও বেশ আগের সিদ্ধান্ত। গত প্রায় এক দশক ধরে আওয়ামী লীগ ক্ষমতায়, এ কারণেই জনপ্রিয় ও কর্মঠ নেতাদেরই মনোনয়ন দেবে দল। এ ছাড়া জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট ও জোটের নেতাদের সঙ্গে আসন ভাগাভাগির বিষয়টি নিশ্চিত করার পর বিএনপি আনুষ্ঠানিকভাবে দলের প্রার্থীর নাম ঘোষণা করবে। এ কারণেই মনোনয়নপ্রত্যাশীদের অপেক্ষার পালা এবার একটু দীর্ঘ।

আজ বুধবার সকালে গুলশানে বিএনপি চেয়ারপারসনের রাজনৈতিক কার্যালয়ে দলটির সাংগঠনিক কাঠামো অনুযায়ী ময়মনসিংহ বিভাগের মনোনয়নপ্রত্যাশীদের সাক্ষাৎকার শুরু হয়। এরপর ফরিদপুর বিভাগ ও বেলা তিনটার পর ঢাকা বিভাগের মনোনয়নপ্রত্যাশীদের সাক্ষাৎকার শুরু হয়। সন্ধ্যার পরও গুলশানে বিএনপির চেয়ারপারসনের কার্যালয়ে মনোনয়নপ্রত্যাশীদের সাক্ষাৎকার চলছিল।

বিএনপির অপর একটি সূত্র বলছে, মনোনয়নের প্রক্রিয়া আজ শেষ হচ্ছে। তবে এই প্রক্রিয়া কেমন হবে, তা আগেই ঠিক করে রাখা। নির্বাচনের মাঠ না ছাড়তে এবং দল থেকে মনোনীত প্রার্থীর হয়ে কাজ করার জন্য মনোনয়নপ্রত্যাশীদের বার্তা দিয়েছে দল। এ ছাড়া কেউ যেন দলের সিদ্ধান্তের বাইরে গিয়ে কোনো সিদ্ধান্ত না নেন, সে বিষয়েও সবাইকে সতর্ক করা হয়েছে।

এদিকে মনোনয়নপ্রত্যাশীরা আজ তাঁদের কর্মী-সমর্থকদের নিয়ে গুলশান কার্যালয়ের সামনে শো–ডাউন করেন। মনোনয়নপ্রত্যাশীদের কর্মী–সমর্থকদের কারণে গুলশান কার্যালয়ের সামনের ও আশপাশের রাস্তায় যান চলাচলে প্রতিবন্ধকতার সৃষ্টি হয়। পরে দলের মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর চেয়ারপারসনের কার্যালয়ের দ্বিতীয় তলা থেকে মাইকে মনোনয়নপ্রত্যাশীদের উদ্দেশে বলেন, শেষবারের মতো বলছি, ‘এখন যাঁরা কর্মী-সমর্থকদের নিয়ে শো–ডাউন দিচ্ছেন, তাঁরা শো–ডাউন বন্ধ করুন। মূল রাস্তা ছেড়ে দিয়ে পাশের গলিতে অবস্থান করুন। সড়কে শৃঙ্খলা বজায় রাখুন। যান চলাচলে বিঘ্ন সৃষ্টি করবেন না।’ তিনি বলেন, ‘যাঁরা শোডাউন দিয়ে বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি করবেন, কাজের স্বাভাবিক পরিবেশে বিঘ্ন ঘটাবেন, তাঁদের দলীয় মনোনয়ন দেওয়া হবে না।’

গত রোববার (১৮ নভেম্বর) সাক্ষাৎকারের প্রথম দিন রংপুর ও রাজশাহী বিভাগ, সোমবার বরিশাল ও খুলনা বিভাগ এবং মঙ্গলবার চট্টগ্রাম, সিলেট ও কুমিল্লা বিভাগের মনোনয়নপ্রত্যাশীদের সাক্ষাৎকার নেন বিএনপির পার্লামেন্টারি বোর্ডের সদস্যরা। প্রতিদিনই দলের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান লন্ডন থেকে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে মনোনয়নপ্রত্যাশীদের সাক্ষাৎকার নেন।

৮ নভেম্বর জাতির উদ্দেশে দেওয়া ভাষণে প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কে এম নুরুল হুদা তফসিল ঘোষণা করেন। তখন ২৩ ডিসেম্বর ভোটের তারিখ ধরে ১৯ নভেম্বর পর্যন্ত মনোনয়নপত্র দাখিল, ২২ নভেম্বর বাছাই এবং ২৯ নভেম্বর পর্যন্ত মনোনয়নপত্র প্রত্যাহারের সুযোগ ছিল। পরে জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের অনুরোধে নির্বাচন পেছায় নির্বাচন কমিশন। পরিবর্তিত তারিখ অনুযায়ী আগামী ৩০ ডিসেম্বর ভোটের তারিখ রেখে মনোনয়নপত্র দাখিলের শেষ সময় ২৮ নভেম্বর, বাছাই ২ ডিসেম্বর এবং প্রার্থিতা প্রত্যাহারের শেষ সময় ৯ ডিসেম্বর নির্ধারণ করে ইসি।

আরও পড়ুন

জাতীয় পার্টির মহাসচিব পদে রদবদল

জাতীয় পার্টির মহাসচিব রুহুল আমিন হাওলাদারকে সরিয়ে দিয়েছেন দলটির চেয়ারম্যান এইচ এম এরশাদ। তাঁর জায়গায় …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *